-

Last programming contest

২০১২ সালের বুয়েট IUPC ছিল লাইফের শেষ প্রোগ্রামিং কন্টেস্ট। কন্টেস্ট মানেই ছিল নতুন টি-শার্ট, নতুন ব্যাগ, ক্যালকুলেটর, বুফে ডিনার। চ্যাম্পিয়ন হবার চিন্তা ভুলেও মাথায় আসতনা। প্রতি কন্টেস্টে কন্টেস্ট আওয়ার ছিল পাঁচ ঘন্টা করে। সবগুলো কন্টেস্টই অনেক এনজয় করছি প্রথম তিন ঘন্টা পর্যন্ত। এর পরের দেড় ঘন্টা ছিল খুবই বিরক্তিকর। দুই-একটা যা করার মত ছিল তা করা হয়ে গেছে। এখন আর কোন কিছুই মিলে না। সময়ও কাটে না। খাবার-দাবার অলরেডি সব শেষ। শেষে কাজ-কাম না পাইয়া সলিটেয়ার খেলতাম। বড় ভাইরা পাশ দিয়ে যাইত আর আমাদের দেখে মুচকি হাসত! শেষের আধা ঘন্টায় আবার পুরাই প্রেশার। একটা প্রবেলম দেখা যেত হয় হয় করতেছে। ওইটা নিয়ে তিনজনের লাস্ট মিনিট পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে লাফালাফি চলত (চেয়ার বদলা-বদলি আর কি)। কন্টেস্ট শেষে মনে হইত ইশ আর বিশ-পচিশ মিনিট টাইম পাইলে কিছু একটা মনে হয় হয়েই যাইত। আহা কি সব দিন ছিল। কন্টেস্ট করার বদৌলতে ভার্সিটতে ভাল সুবিধা পেতাম। দেখা যেত ক্লাস টেস্ট আর কন্টেস্ট একই দিনে পরছে। সেক্ষেত্রে ক্লাস টেস্ট না দিলেও চলত, বা দেখা যেত কন্টেস্টের জন্য ক্লাস টেস্ট পিছানো হইছে। এখন কন্টেস্ট না থাকায় সবচেয়ে ক্ষতি হইছে যে টি-শার্ট এখন কিনে পরা লাগে। নেটওয়ার্কিং কন্টেস্ট, গেমিং কন্টেস্ট, প্রোগ্রামিং কন্টেস্ট সবই করা হইছে (এবং সবগুলাতেই সাকসেস রেট জিরোর কাছাকাছি)।

ভার্সিটির সিনিয়ররা অনেক হেল্প করছে বিশেষ করে রাইসুল ভাই, ইমদাদ, ইমরান ভাই। আমাদের সময় আমরা যারা কন্টেস্ট করতাম তাদের ভিতর সবচেয়ে ভাল প্রোগ্রামার ছিল ইমদাদুল। সাদেক ভাই এখনো ভার্সিটির জুনিয়র প্রোগ্রামারদের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। কন্টেস্টের সাথে সম্পৃক্ত সবার কথাই মনে থাকবে – মামুন স্যার, কামরুদ্দিন নূর স্যার, আমরান স্যার, প্রণব ভাই, সাদেক ভাই, মাহবুব ভাই, সারোয়ার ভাই, লিজা আপু, রাইসুল ভাই, ইমদাদ, ইমরান ভাই, ফিদা হাসান, আমাদের ইমরান, মিথুন, শুভ, তৌহিদ, মিতু। এখনো ওই সময়টা অনেক মিস করি।